ঢাকা    বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০

coronavirus
আক্রান্ত সুস্থ মৃত
বিশ্বব্যাপী ৩১৭৭১৪১১ ২৩৩৮৬৭১৪ ৯৭৫৩১০
বাংলাদেশ ৩৫২১৭৮ ২৬০৩৯০ ৫০০৭

করোনায় বিপর্যস্ত মানবজাতি , তবে!

প্রকাশিত: ২১:১৮, ২৮ মার্চ ২০২০  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) বিপর্যয়ের সম্মুখীন গোটা মানবজাতি। ক্রমেই বিস্তৃতি ঘটছে এটির। আর এর ফলে প্রতিনিয়তই বাড়ছে আক্রান্ত মানুষ ও প্রাণহানীর সংখ্যা। ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে বিশ্বের বেশির ভাগ দেশেই জনগণকে ঘর থেকে বের হওয়ার ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। এছাড়া বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে স্কুল-কলেজ, বিনোদন কেন্দ্র, বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান ও কলকারখানাও। এর ফলে বড় ধরনের ধাক্কা খেয়েছে বৈশ্বিক অর্থনীতি। তবে অর্থনৈতিক দিক থেকে বিশ্ব বেশ ক্ষতিগ্রস্ত হলেও উপকৃত হচ্ছে বিশ্বের পরিবেশ।
সম্প্রতি এক সমীক্ষায় দেখা গেছে যে, লোকজন ঘর থেকে বের না হওয়ায় ও শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ থাকায় বিশ্বে পরিবেশ দূষণের হার অনেকটাই কমে এসেছে। এছাড়া সেরে উঠছে বায়ু মণ্ডলের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ স্তর ওজোন- এর ক্ষতও।

সূর্য থেকে আসা আলোর ফলে পৃথিবীতে প্রাণের সঞ্চার হয়। তবে এই আলোর সঙ্গে সেখান থেকে অতি বেগুনি রশ্মিসহ আরো অনেক ক্ষতিকর আলোক রশ্মিও চলে আসে, যা পৃথিবীতে থাকা বিভিন্ন প্রাণীর জন্য মারাত্মক হুমকি হয়ে দাঁড়ায়।

তবে এই ক্ষতিকর আলোক রশ্মিগুলোকে শোষণ করে নেয় ওজোন স্তর, এছাড়া শুষে নেয় কার্বন-ডাই-অক্সাইডও। এর মাধ্যমে পৃথিবীকে ও পৃথিবীর সব প্রাণকে রক্ষা করে এটি। কিন্তু ক্রমবর্ধমান পরিবেশ দূষণ ও ক্ষতিকর সিএফসি গ্যাসের ব্যবহারের ফলে ক্রমেই ক্ষয় হচ্ছিলো এই স্তরটি, যার ফলে পৃথিবীতে প্রবেশ করছিলো ক্ষতিকর সব রশ্মি, বাড়ছিলো কার্বন-ডাই-অক্সাইডের পরিমাণও। এর ফলশ্রুতিতে বিশ্বের তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাওয়াসহ নানা ধরণের প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের ঘটনা ঘটছিলো।

কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে ধীরে ধীরে সেরে উঠছে ওজোন স্তরের সেই ক্ষত। ওজোন স্তর ও বিশ্বের পরিবেশ নিয়ে এই সমীক্ষাটি পরিচালণা করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের কলোরোডা বিশ্ব বিদ্যালয়ের একদল গবেষক, যার নেতৃত্ব দিয়েছেন অন্তরা ব্যানার্জি।

গবেষণাটিতে দাবি করা হয়েছে যে, ওজোন স্তরকে রক্ষায় ১৯৮৭ সালে স্বাক্ষরিত মন্ট্রিয়াল চুক্তির সঙ্গে বর্তমান পরিস্থিতি যোগ হওয়ায় বহু বছর ধরে এর যে ক্ষতি হয়ে আসছিলো, তা পুষিয়ে যাচ্ছে। এই ধরনের পদক্ষেপ যদি আমরা গ্রিন হাউস গ্যাস নিস্বরণের ক্ষেত্রেও নেই, তবে পৃথিবী অনেকটাই দূষণ মুক্ত হয়ে উঠবে।

সূত্র: এএফপি

Add